গর্ভাবস্থায় যেসকল খাবার থেকে দূরে থাকবেন

প্রত্যকটা নারীদের জন্য আনন্দের সময় হচ্ছে গর্ভবতী হওয়া। মা হওয়ার মাধ্যমে যেন জীবনের পরিপূর্ণতা আসে নারীদের জীবনে। মা হওয়ার প্রথম ধাপ গর্ভবতী হওয়া অর্থাৎ গর্ভাবস্থা।

গর্ভাবস্থার সময় প্রত্যেক অন্তঃসত্ত্বা নারীর জন্য দরকার হয় আলাদা যত্নের । দরকার হয় পুষ্টিকগুন সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার। তাইতো এ সময়ে চিকিৎসকেরা পরামর্শ দেন পুষ্টিকর খাবার খাওয়ার।

কিছু খাবার পুষ্টিকর হলেও অনেক খাবার আছে যেগুলো গর্ভবতীদের জন্য ক্ষতিকর। কারণ গর্ভাবস্থায় মা যা খাবেন তার প্রভাব ওই সন্তানের ওপর পরবে।  

তাই অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে যেসকল খাবারের ক্ষতিলর প্রভাব সন্তানের ওপর পরতে পারে এসকল খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। কোন অবস্থাতেই এগুলো খাওয়া যাবে না।

গর্ভাবস্থায় যেসব খাবার থেকে দূরে থাকবেন, কোন অবস্থাতেই খাবেন না-

১.অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর কোন অবস্থাতেই জাঙ্ক ফুড খাবেন না। কারণ জাঙ্ক ফুড খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে ওষুধ খেতে হবে, যার প্রভাব পড়বে গর্ভের শিশুর ওপর। তাই স্ট্রিট ফুড, জাঙ্ক ফুড থেকে অবশ্যই দূরে থাকবেন।

২.অ্যালকোহল সেবন থেকে বিরত থাকতে হবে , বেশি পরিমানে অ্যালকোহল সেবনে সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে। ধূমপান, মদ্যপান বা যে কোন অ্যালকোহল সেবন কোনোটাই এ সময় নেয়া উচিত না। অতিরিক্ত ডোপামিন হরমোন ক্ষরণ এই সময় শিশুর ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

৩.অন্তঃসত্ত্বাদের হাঙর, সওয়ার্ডফিশ, টুনা, কিং ম্যাকেরেল এবং টাইল ফিশ খাওয়া যাবেনা।

৪. কাঁচা স্প্রাউটস খুব স্বাস্থ্যকর একটি খাবার হলেও যখন রান্না না করে খাওয়া হয় তখন তা গর্ভবতী নারীদের পক্ষে ভালো হয়ে ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। আবার কাঁচা স্প্রাউটসে ব্যাক্টেরিয়া থাকার সম্ভাবনা থাকে। তাই যতদূর সম্ভব এটাকে এড়িয়ে চলাই ভাল।

৫. তেল জাতীয় খাবার পরিহার করতে হবে। তৈলাক্ত খাবারে এতে উচ্চ পরিমাণে লবণ, চিনি থাকে ও প্রচুর প্রিজারভেটিভ কেমিক্যালের উপস্থিতির কারনে এগুলো গর্ভবতী নারী ও শিশুকে প্রভাবিত করতে পারে।

তাই এসব খাবার থেকে দূরে থেকে টাটকা খাবার খাওয়া উচিত। যে সকল খাবারে ক্যালসিয়াম ও আয়রনের উপস্থিতি বেশি, এগুলো খেয়ে শরীরে ক্যালসিয়াম ও আয়রনের পরিমান বাড়িয়ে নেওয়া উচিত।

তথ্যসূত্র: বোল্ডস্কাই

Leave a Comment